বাজল ছুটির ঘণ্টা! গরমের ছুটির আগে ফের স্কুল-কলেজে ছুটি ঘোষণা, রইল সম্পূর্ণ তালিকা

এবার স্কুল-কলেজ পড়ুয়াদের জন্য ফের জারি হলো নয়া ছুটির নির্দেশিকা। আসলে সামনেই সাত দফা লোকসভা নির্বাচন এবং বিধানসভা উপনির্বাচনের দরুন রাজ্য সরকার, নির্বাচনের দিনগুলিতে সংশ্লিষ্ট এলাকায় স্থানীয়ভাবে সরকারি ছুটি ঘোষণা করেছে। এই সময় সকল স্কুল এবং কলেজ ছুটি থাকবে। এই মর্মে রাজ্যের তরফ থেকে নয়া নির্দেশিকা জারি করা হয়েছে, যেখানে বলা হয়েছে ছাত্র-ছাত্রীদের সুরক্ষার জন্য ভোটের দিনগুলিতে ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে সরকারের তরফ থেকে। এর ফলে ভোট পরিচালনা করা বেশ খানিকটা সহজ হবে। প্রতিবছর গরমের ছুটি থাকে ৯ই মে থেকে ২০শে মে পর্যস্ত।

এই বছর ভোটের জন্য গরমের ছুটির সময়সীমা বাড়ানো হয়েছে। ৬ই মে থেকেই রাজ্যের প্রাথমিক, মাধ্যমিক এবং উচ্চ মাধ্যমিক স্কুলগুলিতে গরমের ছুটি পড়ে যাচ্ছে। মধ্যশিক্ষা পর্ষদ ও প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের তরফ থেকে ইতিমধ্যেই সেই বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়েছে। ৬ই মে থেকে ২রা জুন পর্যন্ত রাজ্যের সব স্কুলে চলবে গরমের ছুটি। প্রতিটি কর্মচারী ভোট দিতে পারে তার জন্য রাজ্য দ্বারা পরিচালিত সরকারী অফিস, উদ্যোগী সংস্থা, কর্পোরেশন, বোর্ড, সংবিধিবদ্ধ ও স্থানীয় সংস্থাও এই সময় বন্ধ রাখার কথাও বলা হয়েছে। নির্দেশিকায় বলা হয়েছে যে, উত্তরবঙ্গের চা বাগান-সহ দোকান এবং বাণিজ্যিক ও শিল্প প্রতিষ্ঠান, সংশ্লিষ্ট সংসদ ও বিধানসভা কেন্দ্রে ভোটের দিন ছুটি থাকবে।

কোনো সংস্থা ওইদিন কর্মচারীর বেতন কাটতে পারবে না। যদি কোনো কর্মচারী সংশ্লিষ্ট সংসদীয় বা বিধানসভা কেন্দ্রের বাইরে কাজ করেন এবং ভোটগ্রহণের তারিখটি যদি তার কর্মস্থলে ছুটি হিসাবে ঘোষণা না করা হয়, তাহলে সেক্ষেত্রে সেই কর্মীকে সেই তারিখে বিশেষ ছুটির অনুমতি দিয়ে ভোট দেওয়ার অনুমতি দিতে হবে। ভোটগ্রহণের তারিখের আগের দিনগুলি, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এবং রাজ্য সরকারি অফিসগুলির জন্য স্থানীয় ছুটি হিসাবে ঘোষণা করা উচিত, কারণ সেই স্থানগুলি ভোটকেন্দ্র, সেক্টর অফিস, বিতরণ-কাম-গ্রহণ কেন্দ্র বা অন্য কোনো নির্বাচন সম্পর্কিত উদ্দেশ্যে ব্যবহৃত হবে। নির্দেশিকায় আরো জানানো হয়েছে যে, যদি ভোটগ্রহণের তারিখগুলিতে গভীর রাত পর্যন্ত ভোটগ্রহণ প্রক্রিয়া অব্যাহত থাকে, তবে সেক্ষেত্রে পরের দিন যদি সময়মতো কোনো ব্যক্তি অফিসে উপস্থিত হতে না পারে, তবে ভোটের পরের দিন তাকে ‘বিশেষ ছুটি’ দেওয়া যেতে পারে।

আরও পড়ুন – Cash Transaction: ক্যাশ তুলতে আর বারবার ছুটতে হবে না ATM, বাড়ি বসেই পেয়ে যাবেন টাকা, শুধু সেরে ফেলুন এই কাজ

রাজ্যের ৪২টি লোকসভা আসনে ১৯ ও ২৬শে এপ্রিল, ৭, ১৩, ২০, ২৫শে মে এবং ১লা জুন সাত দফায় নির্বাচন হবে। আগামী ৭ই মে ভগবানগোলা ও ১লা জুন বরানগর এই দুটি বিধানসভা কেন্দ্রে উপনির্বাচন হবে। ১৯শে এপ্রিল কোচবিহার, আলিপুরদুয়ার, জলপাইগুড়িতে প্রথম পর্যায়ের নির্বাচন হবে। ২৬শে এপ্রিল দার্জিলিং, রায়গঞ্জ, বালুরঘাটে দ্বিতীয় দফার নির্বাচন হবে। ৭ই মে মালদহ উত্তর, মালদহ দক্ষিণ, জিয়াগঞ্জ, মুর্শিদাবাদ তৃতীয় দফার নির্বাচন হবে। ১৩ই মে বহরমপুর, কৃষ্ণনগর, রানাঘাট, বর্ধমান পূর্ব,- বর্ধমান দুর্গাপুর, আসানসোল, বোলপুর, বীরভূমে চতুর্থ দফার নির্বাচন হবে।

২০শে মে বনগাঁ, ব্যারাকপুর, হাওড়া, উলুবেড়িয়া, শ্রীরামপুর, হুগলী, আরামবাগে পঞ্চম দফার নির্বাচন হবে। ২৫শে মে তমলুক, কাঁথি, ঘাটাল, ঝাড়্গ্রাম, মেদিনীপুর, পুরুলিয়া, বাঁকুড়া, বিষ্ণুপুর কেন্দ্রে ষষ্ঠ দফায় নির্বাচন হবে। ১লা জুন দমদম, বারাসাত, বসিরহাট, জয়নগর, মথুরাপুর, ডায়মন্ডহারবার, যাদবপুর, কলকাতা দক্ষিণ এবং কলকাতা উত্তর কেন্দ্রে সপ্তম দফার লোকসভা নির্বাচন হবে। ৪ঠা জুন নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণা করা হবে।

Leave a Comment